dainik shomoy | logo

১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

শ্যামনগরে অবৈধ ইট ভাটার ধোঁয়া ও ধুলোয় – শিক্ষা পরিবেশ অন্ধকার! পর্ব (২)

প্রকাশিত : নভেম্বর ১৮, ২০২০, ১১:৪৬

শ্যামনগরে অবৈধ ইট ভাটার ধোঁয়া ও ধুলোয় – শিক্ষা পরিবেশ অন্ধকার! পর্ব (২)

ইয়াছিন মোড়লঃ শ্যামনগর প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার, রামজীবনপুর দাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন আশা ব্রিকস্ অবস্থিত যার মালিক আলহাজ্ব আরব আলী, তার সন্নিকটে এম.বি ব্রিকস্ অবস্থিত এর মালিক মোস্তাফা হুজুর । হাইওয়ে রোডের পাশে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় পরিবেশ দূষণ করে প্রশাসন’কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজেদের বাহুবলে চালিয়ে যাচ্ছে অবৈধ ইটের ভাটা।

প্রভাবশালী এই ভাটা মালিকরা কাহারও পরোয়া করছেন না । সরোজমিনে ঘুরে দেখা যায় নূরনগর টু গোডাউন মোড় রোডের উপরে মাটির টিলা তৈরি করা হয়েছে , একটু বৃষ্টি হলেই টালের মাটি গড়িয়ে পড়ে রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। রামজীবনপুর তথা তার আশপাশে বর্তমানে জন দুর্ভোগ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। প্রভাবশালী ভাটা মালিকদের ভয়ে, নীরবে অত্যাচার সয্য করলেও প্রতিবাদ করে না কেহ ।

নাম না বলার শর্তে স্থায়ী বাসিন্দারা বলেন, চলতি সিজনে এই সমস্ত ইট ভাটায় কাট, টায়ার, প্লাস্টিক, ও মোবিল জালানো হয় , যার ফলে প্রচন্ড বায়ু দূষণ ও ইটের ধুলোয় এলাকাবাসী ও মাদ্রাসার ছাত্র ছাত্রীরা শ্বাসকষ্ট সহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়। ভাটার মাটি বহনে (ডাম্পার) অতিরিক্ত মাটি লোড নিয়ে স্পিডে চলাচলের কারনে, পাশ্ববর্তী গ্রামের স্কুলগামী বাচ্চারা আতঙ্কিত!

১৫ নং সোয়ালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোছাঃ ছামছুন্নার বলেন, দ্রুত গতিতে ডাম্পার চলাচলের কারনে ছাত্র ছাত্রীরা আতঙ্কে স্কুলে আসতে চায় না। বিদ্যালয় টি রাস্তার পাশে হওয়ায় পাঠদানের সময় জানালা খুলতে পারেন না শিক্ষকেরা।
এমন জনবসতিপূর্ণ এলাকায় শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করে কিভাবে চলতে পারে ইট ভাটার মাটি বহন গাড়ি ডাম্পার।

এ ব্যাপারে শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলন বলেন, সরকারের উন্নয়ন ও আমাদের দৈনন্দিন জীবন চালাতে ইট ভাটার প্রয়োজন, কিন্তু সেটা সরকারি নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে নয় । আমি দেখেছি নুরনগর টু গোডাউন মোড় রাস্তার বেহাল দশা, সেটা সুধু মাত্র রামজীবনপুর দাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন আশা ব্রিকস্ ও এম.বি ব্রিকস্ এর মাটি বহন ডাম্পারে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

জনবসতিপূর্ণ এলাকায় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন এলাকায় পরিবেশ দূষণ করে, ছাত্র ছাত্রীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ফেলে কিভাবে চলতে পারে এই সমস্ত ইটের ভাটা তা আমার বোধগম্য নয়। আমি জানি না এই সমস্ত ইট ভাটায় কোন লাইসেন্স আছে কিনা, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র আছে কিনা, ট্রেড লাইসেন্স আছে কিনা, আর যদি থাকে তাহলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো কিভাবে লাইসেন্স দিতে পারে সেটা আমার জানার বাইরে ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ.ন.ম আবুজর গিফারী বলেন ইট ভাটার কালো ধোঁয়া ও ধুলোয় শিক্ষার্থীদের শারীরিক সমস্যা হলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এবং রাস্তা নষ্ট করা ডাম্পার (টলি) গাড়ির জন্য কোন রোড পার্মিট নেই, ইট ভাটার মাটি বহনের জন্য অতিরিক্ত লোড নিয়ে ডাম্পারে রাস্তা নষ্ট করলে সংশ্লিষ্ট ভাটা মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।




সম্পাদক ও প্রকাশক :

অফিস লোকেশন:

ফোন:

ই-মেইল:

Copyright  @ JagoBarta.  All right reserved. Website Hosted by www.bdwebs.com