dainik shomoy | logo

২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৬ই মে, ২০২১ ইং

শ্যামনগরে ১৯ নং যাদবপুর সসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপ বরাদ্দ আত্মসাতের অভিযোগ

প্রকাশিত : এপ্রিল ২৫, ২০২১, ১০:১৯

শ্যামনগরে ১৯ নং যাদবপুর সসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  স্লিপ বরাদ্দ আত্মসাতের  অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
তথ্যানুসন্ধানে থলের বিড়াল বেরিয়ে এলো । কেঁচো খুঁজতে সাপ! শ্যামনগর উপজেলা (প্রাথমিক) শিক্ষা অফিস নাকি দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে, অফিস থেকে যে কোন কাজ ছাড়াতে গেলে দিতে হয় মোটা অংকের উৎকোচ, জানালেন ১৯ নং যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ লিয়াকত হোসেন ।

স্লিপের টাকায় শুধু মাত্র শিক্ষা উপকরণ ক্রয় করা হয়ে থাকে, কিন্তু গত বছর থেকে আজ অবদি স্কুল বন্ধ! হয়নি পাঠদান , তার পর ও উপজেলার প্রতি টি স্কুলে ৫০/৭০ হাজার টাকা পেয়েছেন ।
২০/২১ সালের স্লিপ বাবদ নির্ধারিত টাকায় কি শিক্ষা সামগ্রী ক্রয় করেছেন এ প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেননি ১৯ নং যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ লিয়াকত হোসেন।

তিনি বলেন স্লিপ বরাদ্দ ছাড় করাতে গেলে সহকারী শিক্ষা অফিসার সোহাগ হোসেন ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার(ভারপ্রাপ্ত ) আজহারুল ইসলাম কে দিতে হয় আনুপাতিক হারে পার্সেন্ট।
তার পরেও অত্র বিদ্যালয়ের সভাপতির ও যথেষ্ট চাহিদা থাকে । তাহলে আমরা এই সামান্য টাকায় কিভাবে মালামাল ক্রয় করবো, এই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন আমাদের প্রতিবেদকের দিকে ।

স্লিপ বরাদ্দ আত্মসাতের ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) আজহারুল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানান, ঘটনাটি ২০ সালের হলে আমি কিছুই জানি না, তখন আমি দায়িত্ব ছিলাম না, কিন্তু ২১ সালে কোন দুর্নীতি হয়েছে কি না তা তিনি খতিয়ে দেখবেন বলে আশ্বাস দেন ।




সম্পাদক ও প্রকাশক :

অফিস লোকেশন:

ফোন:

ই-মেইল:

Copyright  @ JagoBarta.  All right reserved. Website Hosted by www.bdwebs.com