সকাল ৯:১৬ মঙ্গলবার ১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

রাজাকার-জামায়াত জোটকে ক্ষমতার বাইরে রাখতে হবে : নেওয়াজ | কালিগঞ্জে রাতের আধারে ২ বিঘা জমির ধান কেটে নিয়েগেল প্রতিপক্ষরা | কালিগঞ্জে স্বাধীনতা প্রজন্মলীগের নব গঠিত কমিটির পরিচিতি সভা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত | বিএনপির মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু | কালিগঞ্জে অবৈধ ভাবে বোরিং মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে মানববন্ধ অনুষ্ঠিত | কালিগঞ্জের রতনপুর ইউনিয়নে ১০ টাকা কেজী দরে চাউল উদ্বোধন | বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ আতাউর রহমানের পরিচিতি | মথুরেশপুর ইউনিয়ন স্বাধীনতা প্রজন্মলীগর নবগঠিত কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত | কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন | কালিগঞ্জ উপজেলায় সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত এস আইদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন ওসি |

কালিগঞ্জে সাপখালি খালের অবৈধ দখলদার ভূমি দস্যু নুর ইসলামের ২ কোটি টাকার মাছ লুটের অভিযোগের সত্যতা পায়নি তদন্ত কর্মকর্তা

নিউজ ডেস্ক | দৈনিক সময়
আপডেট : সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮ , ৪:২০ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আর্ন্তজাতিক,আশাশুনি,কলারোয়া,কালিগঞ্জ,জাতীয়,রাজনীতি,শ্যামনগর,সাতক্ষীরা সদর
পোস্টটি শেয়ার করুন

আতিকুর রহমান, নিজস্ব প্রতিনিধি, দৈনিক সময়: কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হাসান হাফিজুর রহমান এবং তৎকালীন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও বর্তমান সহকারী কমিশনার [ভুমি] নুর আহমেদ মাসুমের বিরুদ্ধে ভূমি দস্যু নুর ইসলামের দায়ের করা ২ কোটি টাকার ঘের লুটের অভিযোগের সত্যতা পায়নি তদন্ত কর্মকর্তা। সাতক্ষীরা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক শাহ আব্দুস ছাদিক গতকাল বেলা ১২টার সময় উপজেলার মৌতলা ইউনিয়নের সাপখালী খালে তদন্তে গেলে হাজার হাজার গ্রামবাসী ভূমি দস্যু নুর ইসলামের গ্রেপ্তার এবং বিভিন্ন প্লাকাড সহ সাপখালী বানিয়াপাড়া জগবাড়িয়া খাল উন্মুক্তোর দাবী জানান। সরে জমিনে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, কালিগঞ্জ উপজেলার নেংগী মৌজার এস,এ ১৫৯ ডিপি ৪৫১ এস, এ দাগ, ৪৭৭, ৮৪৭, ১৩১৬, হালদাগ ১, ১৬১৬ এবং ২১০২ দাগের প্রায় ৩৬ একর জমি বর্তমানে উক্ত জমি ১/১ খতিয়ানের ৩৬ একর জমি ভুয়া ডিড এর মাধ্যমে গোপাল গঞ্জের এক ইউপি চেয়ারম্যান এর নাম ভাঙিয়ে কালিগঞ্জ উপজেলার বানিয়া পাড়া রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত বিষে মোড়লের পুত্র নুর ইসলাম দীর্ঘদিন উক্ত খাল দখল এবং প্রবাহমান খালে নেট পাটা দিয়ে সরকারী খাল দখল করে মৎস্য চাষ করে আসছিল। গত জুলাই মাসের শেষ সপ্তায় প্রবল বর্ষনে এলাকার হাজার হাজার বিঘা জমির বীজতলা পানিতে ডুবে নষ্ট হলে গেলে এলাকাবাসীর আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৩১ শে জুলাই তৎকালীন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা বর্তমান উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি নুর আহমেদ মাসুম এবং থানার অফিসার ইনচার্জ হাসান হাফিজুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে হাজার হাজার লোকের সহায়তায় সাপখালী খালের অবৈধ নেটপাটা অপসারন করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত ভুমি দস্যু নুর ইসলাম সহকারী কমিশনার ভুমি ও তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুর মোহাম্মাদ মাসুম এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান হাফিজুর রহমান, কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারাফ হোসেন, ইউপি সদস্য জবেদ আলীর বিরুদ্ধে ২ কোটি টাকার ঘের লুটের অভিযোগ এনে গত ২ আগষ্ট জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। জেলা প্রশাসক মহোদয় অভিযোগটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকে [সার্বিক] নির্দেশ দেন। উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক [সার্বিক] শাহা আব্দুস ছাদিক এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন গতকাল বেলা ১২টার সময় সরে জমিনে তদন্তে যান। তদন্তকালে ভুমি দস্যু নুর ইসলাম ঘের লুটের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে তদন্তকারী কর্মকর্তাকে জানান। তবে মিথ্যা অভিযোগ করার পক্ষে কোন কথা না বলতে চাইলে তদন্ত কর্মকর্তা বিতর্কিত জমির কাগজ পত্র নিয়ে তার অফিসে উপস্থিত হওয়ার জন্য নির্দেশ দেন। তদন্তে স্থানীয় মৎস্য জীবি সম্প্রদায় গোপালগঞ্জের নাম ভাঙ্গিয়ে খাল দখল করে এলাকার লোকদের মারধর এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে খালে বাধ পাটা দিয়ে মাছ চাষ করায় বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তার নিকট বিস্তার অভিযোগ জানান। ঐসময় এলাকার সাধারণ মানুষ, কৃষক, চাষী, মৎস্যজীবি জেলেরা মুখে কালো কাপড় বেধে ভুমি দস্যু র্নু ইসলামের গ্রেপ্তার দাবী জানান। বেলা ১টার সময় এলাকার প্রায় ৫শতাধিক লোক খাল বন্ধ করার প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ বিক্ষোভ সমাবেশ করে। উক্ত সমাবেশে মৌতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মেহেদী বলেন কারো নাম ভাঙ্গিয়ে সরকারী সম্পত্তি অবৈধ ভাবে দখল যারা করেছে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে এলাকার খাল উন্মুক্ত করতে হবে। প্রধান মন্ত্রীর ঘোষনা অনুযায়ী জাল যার জলা তার এই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করার জন্য ভুমি দস্যু এবং জামায়াত ক্যাডার নুর ইসলাম এবং তার পুত্র আবু বক্কার মোড়লের শাস্তির দাবী জানান। তিনি আরো বলেন প্রধান মন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিকে যারা বৃদ্ধাঙ্গলী দেখাতে চাই তারা যতই শক্তিশালী হোক না কেন কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ তাদেরকে শক্ত হাতে প্রতিহত করবে। এাছাড়া তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বর্তমান উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নূর আহম্মেদ মাছুম এবং কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হাসান হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করায় উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। যারা অবৈধ ভাবে খাল ও খাস জায়গা দখল করে সরকারের সুনামকে বিনষ্ট করতে চাচ্ছে তাদেরকে কোন প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কে,এম মোশারফ সহ স্থানীয় ইউপি সদস্য এবং সাধারণ জেলে, কৃষক এবং মৎস্য জীবিরা খাল উন্মুক্ত করার জন্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের নিকট জোর দাবী জানান। পরে বিক্ষিপ্ত এলাকাবাসী খালের পাটা অপসারণ করে। এবং এলাকাবাসী ওসি এবং ইউএনওর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করার ঘটনায় ভুমি দস্যু নুর ইসলাম এবং তার পুত্র হাইব্রিড আবু বক্কার কে আইনের আওতায় এনে গ্রেপ্তারের দাবী জানান।